1. multicare.net@gmail.com : news : VOICE CTG NEWS
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
আজ থেকে গণটিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু মোরেলগঞ্জে স্পন্দনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে দিনব্যাপী বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কর্মসূচি পালন ঝিকরগাছায় মৎস্যজীবী লীগের গাছের চারা ও করোনা সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ ধামরাইতে পূর্বশত্রুতার কারনে গাছ কর্তন হরিপুরে ছেলের লাঠির আঘাতে বাবার মৃত্যু ভাষা শহীদ বিদ্যানিকেতন স্কুলের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে চাকরি দেওয়ার নামে ঘুষ নেওয়ার অভিযোশিক্ষক নাটোরে লালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে টিকা গ্রহীতাদের উপচে পড়া ভিড় চিরিরবন্দর থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ১৪ কেজি ২০০ গ্রাম গাঁজাসহ ১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার র‌্যাব-১৩ রংপুর কর্তৃক হেরোইনসহ ২ জন নারী মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার মোড়েলগঞ্জে বিএনপির উদ্যোগে করোনা সামগ্রী অর্থ সহায়তা প্রদান

উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের ইউএলও ও ভিএস এর অব্যবস্থাপনায় ভেঙে পড়েছে চিকিৎসা সেবা

  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৬৫ বার পড়া হয়েছে

তরিকুল ইসলাম (তারেক)খুলনা ব্যুরো
গৃহপালিত ও গবাদি পশুর সেবা না পাওয়ায় হয়রানির শিকার হচ্ছে উপজেলার কৃষক ও খামারিরা। ফলে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তারা। সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলায় একজন ইউ এলও এবং একজন ভিএস থাকা সত্বেও মিলছে না কোন সেবা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন খামারি বলেন ডক্টর অমল কুমার সরকারের নিকট চিকিৎসা সেবা নিতে আসলে গবাদিপশুতে হোমিও প্যাথিক চিকিৎসা দিয়ে ১০০০- ৩০০০ হাজার টাকা বিল করেন। আমার গরুর রোগ ভালো হয়নি এবং প্রতিষ্ঠানের বাহিরে চিকিৎসা সেবা দিলে অধিক টাকা নেন বলে জানিয়েছেন। ড. অমল কুমার সরকার নিজস্ব ক্ষমতাবলে অবসরপ্রাপ্ত মোঃ মিজানুর রহমান, উপসহকারী প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা, প্রোডাকশন (অবঃ) কে অত্র প্রতিষ্ঠানের কার্যাবলী সম্পাদন করাচ্ছেন। ফলে ভুক্তভোগীরা দ্বিমত পোষণ করেন এবং সরকারি সিমেন দ্বারা ৪০০-৮০০ টাকায় প্রজনন করাচ্ছেন যার মুল্য ৩০ টাকা। অত্র প্রতিষ্ঠানের ভিএস ডাঃ সাইফুল ইসলাম অফিস চলাকালীন সময়ে অফিসে না থেকে সরকারি বেতন ছাড়াও অতিরিক্ত অর্থের আশায় গবাদিপশু ভিজিট প্রতি ১০০০-৩০০০ টাকা পর্যন্ত বিল করেন। ফলে কৃষক ও খামারিরা গবাদিপশু পালনে অনিহা প্রকাশ করেছেন। এবং মহামারী করোনা কালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রনোদোনার টাকা অধিকাংশ কৃষক ও খামারিরা পায়নি বলে জানা যায়।

এছাড়াও জানা গিয়েছে ভিএস ডাঃ সাইফুল ইসলাম নিয়মিত অফিসে থাকেন না। বিভিন্ন কারণে অকারনে ছুটিতে থাকেন বলেও অভিযোগ রয়েছে এই অফিসারের বিরুদ্ধে।

উপজেলা সরকারি হাসপাতালের ক্যাসিয়ার (অবঃ) মুনসুর বলেন চাকুরি থেকে অবসরে গিয়ে নিজস্ব উদ্যোগে প্রাণিসম্পাদ অফিস কর্তৃক রেজিষ্ট্রেশন করে ২০-৩০ টি গরু পালন করে যাচ্ছি, গবাদিপশু অসুস্থ হলে প্রাণিসম্পাদ অফিসে একাধিক বার বলা সত্ত্বেও আমার খামারে চিকিৎসা সেবা দিতে যায়নি এবং প্রাণিসম্পাদ হতে কোন সেবা পায়নি। একই উপজেলার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভিন্ন গ্রাম পশু ডাক্তার বলেন সম্প্রতি বর্তমান ইউএলও আইনের ভয় দেখিয়ে গ্রাম পশু ডাক্তারদের চিকিৎসা বন্ধ করে দেন ফলে গরিব কৃষক ও খামারিরা বিপদগ্রস্থ। প্রাণিসম্পদ অফিসের অসহযোগিতায় খামারিরা বিভিন্নভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এছাড়াও এই সরকারি কর্মকর্তা বিভিন্ন ইউনিয়ন ওয়ার্ড পর্যায়ে দালালের মাধ্যমে রোগী সংগ্রহ করেন এমন অভিযোগও রয়েছে অনেক আগে থেকেই কিন্তু ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা যেন চোখ বুজে আছেন।

এ সকল অভিযোগের বিষয়ে প্রাণিসম্পদ অফিস কর্মকর্তা ইউএলও ড. অমল কুমার সরকার সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন। আমার হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা সার্টিফিকেট রয়েছে আমি এ বিষয়ে চিকিৎসা দিতে পারি। অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দিয়ে অফিস চালানোর বিষয়ে তিনি বলেন এটা আমার সিদ্ধান্তে না এটা বিভাগীয় সিদ্ধান্তে চলছে এছাড়াও অধিক টাকা দেয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন। গরুর সিমেন বিষয়ে অধিক দামের সাপোর্ট নিয়েছেন এই কর্মকর্তা।

কলারোয়া উপজেলা ভেটেনারি সার্জন ডাঃ সাইফুল ইসলাম বলেন আমি কারো কাছ থেকে অধিক টাকা নিচ্ছি না এবং আমরা দশটি গরু দেখলে পাঁচটি তো ভালো হচ্ছে সেখানে এরকম প্রশ্ন কিভাবে আসে তিনি অন্যান্য অফিসের সাথে কম্প্রোমাইজ করে বলেন অন্যান্য অফিসে যেমন সুদ ঘুষের বাণিজ্য আছে আমাদের এখানে কোন সুদ ঘুষের বাণিজ্য নেই বলে দাবি করেন এই কর্মকর্তা। গরুর সিমেনের ক্ষেত্রে বেশি দাম নেয়া হচ্ছে কেন এই প্রশ্নের প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি সে সকল ডাক্তারদের পক্ষ নিতে দেখা গিয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

সর্বশেষ খবর